মঙ্গলবার

২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চার ফ্লেভার আর স্বাদে ভরা কাঁঠাল জন্মেছে এবার গাছের গোড়ালিতে

Paris
Update : রবিবার, ২ জুন, ২০২৪

স্টাফ রির্পোটার : বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল, সে কথা তো আমরা সবাই জানি। এদিকে শ্রীলঙ্কায়ও এই কাঁঠালই জাতীয় ফল। এটি গ্রীস্ম মৌসুমের জনপ্রিয়। ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৫৬৩ সালে গার্সিয়া দে অর্টা নামের একজন প্রকৃতিবিদ জ্যাকফ্রুট শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেন। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতেই প্রথম কাঁঠাল খাওয়ার প্রচলন হয় মানুষের মধ্যে। সেই ক্রমধারা এখনো রয়েছে অব্যাহত। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ফল এই কাঁঠাল। এ যাবৎ সবচেয়ে বড় কাঁঠাল পাওয়া গেছে শ্রীলঙ্কায়। ওজন ছিল ৫৫ কেজি।
গ্রীষ্ম মৌসুমের এই জাতীয় ফলটি দেশের আনাচে কানাচে দেখা গেলেও গাছের কান্ডের গোড়ালীতে মাটি ঘেষে জন্মানোর দৃশ্য খুব একটা বেশি দৃষ্টিগোচর হয়না। দৈনিক আমাদের রাজশাহী পত্রিকার ফটো সাংবাদিক শামীউল ইসলাম শামীমের ক্যামেরায় তেমনই একটি দৃশ্য ধরা পরে। রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে একটি গাছের কান্ডের গোড়ালিতে দুটো মধ্য আকৃতির কাঁঠাল মাটিতে ভর করে বেড়ে উঠেছে।
জৈব রাসায়নিক গবেষণায় কাঁঠাল নিয়ে পাওয়া এক চমকপ্রদ তথ্য মতে আপেল, আনারস, আম আর কলার সম্মিলিত স্বাদ আর ফ্লেভার থাকে কাঁঠালে। এর উদ্ভিদতাত্ত্বিক বর্ণনা মতে, কাঁঠালের গুণ শুধু ফলে নয়, রয়েছে পুরো গাছেই। অনেক চমৎকারিত্বও রয়েছে এর অঙ্গে অঙ্গে। এর পুরুষ ও স্ত্রী ফুল একই গাছে ভিন্ন ভিন্ন অবস্থানে থাকে। ফুলের এই রকমফেরকে উদ্ভিদবিজ্ঞানের ভাষায় বলে সহবাসী। ভিন্ন ভিন্ন গাছে পুরুষ ও স্ত্রী ফুল থাকলে তাদের বলে ভিনবাসী; পেঁপে গাছ তার সর্বশ্রেষ্ঠ নমুনা। কাঁঠালের স্ত্রী ফুল কান্ডের গোড়ার দিকে, আর পুরুষ ফুল কান্ডের গোড়া ও উপর, উভয় দিকে ধরে। সে মোতাবেক উদ্ভিতবিজ্ঞানের ভাষায় বলা চলে, রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমিক ভবন চত্বরে শামীম যে ছবিটি নিজ ক্যামেরায় ধারণ করেছে সেই কাঁঠালদুটোর জন্ম স্ত্রী ফুল থেকে।


আরোও অন্যান্য খবর
Paris