মঙ্গলবার

২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হজ পালনের ধাপসমূহ

Paris
Update : বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০২৪

এফএনএস : ইসলাম ধর্মের রীতি অনুযায়ী, সামর্থ্যবানদের জীবনে অন্তত একবার হজ পালন ফরজ। প্রতি বছর বিশ্বের কয়েক লাখ মানুষ ৬ দিনের জন্য হজ পালনে মক্কা সফর করেন।
হিজরি ক্যালেন্ডারের ১২তম মাস জিলহজেরর অষ্টম থেকে তেরোতম দিনে হজ অনুষ্ঠিত হয়।
ইসলাম ধর্ম অনুসারে কাবা’কে সবচেয়ে পবিত্রতম স্থান মনে করা হয়। কাবা মুসলমানদের কিবলা। অর্থ্যাৎ, কাবার দিকে মুখ করে মুসলিমরা তাদের নামাজ আদায় করেন। হজ এবং উমরাহ পালনের সময় মুসলিমরা কাবাকে ঘিরে তাওয়াফ করেন। বেশ কিছু ধাপ অনুসরণ করে হজ পালন করা হয়। পাঠকদের জন্য এ ধাপগুলো আলোচনা করা হলো:
১. ইহরাম : হজের ধর্মীয় আচার শুরু হয় ইহরামের মাধ্যমে। ইহরাম শব্দটি হারাম থেকে এসেছে; যার অর্থ কোনো কিছু নিষিদ্ধ করে নেয়া। হজ ও উমরাহ পালনকারী ব্যক্তি ইহরামের মাধ্যমে নিজের ওপর স্ত্রী সহবাস, মাথার চুল, হাতের নখ, গোঁফ, বগল ও নাভির নিচের ক্ষৌর কর্যাদি, সুগন্ধি ব্যবহার, সেলাই করা পোশাক পরিধান এবং শিকার করাসহ কিছু বিষয়কে হারাম করে নেয়।
২. মিনার উদ্দেশে যাত্রা : ইহরামের পর হজ পালনকারীরা মক্কা থেকে মিনার দিকে যাত্রা শুরু করেন। মক্কা থেকে মিনার দূরত্ব প্রায় ৮ কিলোমিটার। হজ পালনকারীদের জন্য মিনায় অবস্থান করা সুন্নত। পরবর্তী দিন না আসা পর্যন্ত মিনাতে অবস্থান করতে হয়। মিনাতে হজ পালনকারীরা অধিকাংশ সময় নামাজ আদায় ও মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহকে স্মরণ করেন।
৩. আরাফাতে অবস্থান : হজ পালনকারীদের জন্য আরাফাতে অবস্থান ফরজ কাজ। হজের আনুষ্ঠানিকতার জন্য মিনা থেকে ১৪.৪ কিলোমিটার দূরে আরাফাতের উদ্দেশে যাত্রা করতে হয়। মূলত ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করাই হজ। এ সময় আরাফাতের ময়দান হজ পালনকারীদের কণ্ঠে ‘লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা, ওয়াননিমাতা লাকা ওয়ালমুলক, লা শারিকা লাকা’ ধ্বনিতে মুখরিত থাকে।
৪. মুযদালিফাহতে পাথর সংগ্রহ : ৯জিলহজ সন্ধ্যায় আরাফাত থেকে মুযদালিফায় রওয়ানা করেন হজব্রত পালনকারীরা। সেখানে তারা রাত্রিযাপন করেন। মিনার শয়তানকে পাথর ছুড়ে মারার জন্য মুযদালিফাহ থেকে পাথর সংগ্রহ করতে হয়।
৫. পাথর ছুড়ে মারা : শয়তানকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়ে মারা হজের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ১০ জিলহজে শুধু বড় জামরায় (শয়তান) পাথর নিক্ষেপ এবং ১১ ও ১২ জিলহজে ছোট, মধ্যম ও বড় এই তিন জামরাতেই (শয়তানকে) পাথর মারা ওয়াজিব। ১০ জিলহজে সারাবিশ্বে ঈদুল-আজহা পালিত হয়। শয়তানকে পাথর ছুড়ে মারার এ কাজ মূলত প্রতীকি।
৬. মিনাতে শেষ দিন : মিনাতে শেষ দিনেও শয়তানকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করেন হজব্রত পালনকারীরা। এদিন তারা শয়তানের প্রতি সাতটি করে পাথর নিক্ষেপ করতে হয়। মিনাতে অবস্থান করতে হয় ২ থেকে ৩ দিন। মিনাতে অবস্থানের সময় শেষ হলে আবার মক্কার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করতে হয়। মিনা থেকে মক্কায় গিয়ে হজ পালনকারীরা চূড়ান্ত তাওয়াফ করেন।
অনেকে হজ পালনের সময় মদিনা সফর করেন। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী মদিনা দ্বিতীয় পবিত্রতম শহর। তবে মদিনা সফর হজের অংশ নয়।

 


আরোও অন্যান্য খবর
Paris