এফএনএস : বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ভঙ্গ করে একজন অধ্যাপকই দীর্ঘ ১১ বছর ধরে চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন। পরপর দুই মেয়াদে ডিনের দায়িত্ব পালনের নিয়ম না থাকলেও টানা তৃতীয় দফায় ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এরপর অন্য একজন দুই বছরের জন্য ডিনের দায়িত্ব পালন করলেও চতুর্থবারের মত পুনরায় আগের ব্যক্তিই ডিন হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন। দায়িত্ব পালন নিয়ে এসব অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) আইন বিভাগের চেয়ারম্যান, অধ্যাপক ড. সরকার আলী আক্কাসের বিরুদ্ধে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জবির আইন বিভাগে দীর্ঘ দিন একজন অধ্যাপকের পদ ফাঁকা। কিন্তু অধ্যাপক নিয়োগের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে কোন চাহিদাপত্র দেয়া হয় না। এ বিষয়ে বিভাগের সিনিয়র কয়েকজন শিক্ষক বলেন, একজন চেয়ারম্যান দীর্ঘ দিন দায়িত্বে থাকলে তার মধ্যে স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাব তৈরি হয়। তিনি জুনিয়র শিক্ষকদের মতামত অগ্রাহ্য করে একাই সিদ্ধান্ত নেন। নিজের ঘনিষ্ঠ শিক্ষকদের পদোন্নতি দেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন (২০০৫) এর ২৪ নম্বর ধারার ২ নম্বর উপধারায় বলা হয়েছে, বিভাগীয় অধ্যাপকদের মধ্য হইতে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পালাক্রমে তিন বৎসর মেয়াদে ভাইস-চ্যান্সেলর কর্তৃক বিভাগীয় চেয়ারম্যান নিযুক্ত হইবেন।

২৪ নম্বর ধারার ৩ নম্বর উপধারায় বলা আছে, যদি কোন বিভাগে অধ্যাপক না থাকেন তাহা হইলে ভাইস-চ্যান্সেলর সহযোগী অধ্যাপকদের মধ্য হইতে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পালাক্রমে একজনকে বিভাগীয় চেয়ারম্যান নিযুক্ত করিবেন। তবে শর্ত থাকে যে, সহযোগী অধ্যাপকের নিম্নের কোন শিক্ষককে বিভাগীয় চেয়ারম্যান পদে নিযুক্ত করা যাইবে না। আরো শর্ত থাকে যে, অনুন্য সহযোগী অধ্যাপক পদমর্যাদার শিক্ষক কোন বিভাগে কর্মরত না থাকিলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রবীনতম শিক্ষক উহার চেয়ারম্যান হইবেন। কিন্ত আইন বিভাগের চেয়ারম্যান নিয়োগের ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ে এই আইন মানা হয়নি। সরকার আলী আক্কাস ২০০৯ সালের ১ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই একটানা ১১ বছর বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।

বর্তমানে আইন বিভাগে দুইজন সহযোগী অধ্যাপক কর্মরত আছেন। কিন্তু তাদের মধ্য থেকে কাউকেই এখন পর্যন্ত ‘পালাক্রমের ভিত্তিতে’ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়নি। এছাড়াও ডিন হিসেবে নিযুক্তির ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় আইন (২০০৫) এর ২২ নং ধারার ৫ নং উপধারায় বলা আছে, ভাইস-চ্যান্সেলর সিন্ডিকেটের অনুমোদনক্রমে প্রত্যেক অনুষদের জন্য উহার বিভিন্ন বিভাগের অধ্যাপকদের মধ্য হইতে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পালাক্রমে দুই বৎসর মেয়াদের জন্য ডিন নিযুক্ত করিবেন। তবে শর্ত থাকে যে, কোন ডিন পরপর দুই মেয়াদের জন্য নিযুক্ত হইতে পারিবেন না।

আরো শর্ত থাকে যে, কোন বিভাগে অধ্যাপক না থাকিলে সেই বিভাগের জ্যেষ্ঠতম সহযোগী অধ্যাপক ডিন পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হইবেন এবং কোন বিভাগের একজন অধ্যাপক ডিনের দায়িত্ব পালন করিয়া থাকিলে ঐ বিভাগের পরবর্তী পালাসমূহে অবশিষ্ট অধ্যাপকগন জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে ডীন পদে নিযুক্তির সুযোগ পাইবেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ওহিদুজ্জামানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আইন অনুযায়ী যেভাবে বলেছে আমি সেভাবেই করেছি। এ বিষয়ে এর বেশি কথা বলতে পারব না।