চারঘাট প্রতিনিধি : রাজশাহীর চারঘাট পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর ২২ বছর পেরিয়ে গেলেও এখানকার বাসিন্দারা যেন প্রত্যন্ত কোনো অঞ্চলের বাসিন্দাই রয়ে গেছে। প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হলেও এখানে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা নেই। পয়োনিষ্কাশন ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার দশা নাজুক। সড়কগুলোও খানাখন্দে ভরা।

জানা যায়, নাগরিকের দ্বারপ্রান্তে সুপেয় পানি সরবরাহের লক্ষ্যে পৌরসভায় তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরণ প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৭ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে চারঘাট পৌরসভায় পানি সরবরাহ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের কাজ চলমান। চারঘাট পৌরসভা প্রকৌশল অধিদপ্তর এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বাংলাদেশ সরকার, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, ওপেক ফান্ড ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এর অর্থায়নে সু-উচ্চ জলাধার নির্মান, উৎপাদক নলকূপ স্থাপন, পর্যবেক্ষণ নলকূপ স্থাপন, পরিক্ষণ নলকূপ স্থাপন, পাম্প হাউজ নির্মান, পাম্প মটরের যান্ত্রিক কাজ, পাম্প ও পাম্প হাউজের বৈদ্যুতিক কাজ চারঘাট হাদী কলেজ চত্ত্বরে চলছে।

পৌর কতৃপক্ষ গত ৩০ জুলাই ২০১৮ তে ঘটা করে কাজের উদ্বোধন করে দ্রুত সময়ের মধ্যে পৌরবাসীকে পানি সরবারহের আশ্বাস দেয়। পানি সরবারহ ব্যবস্থাপনা কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২২ নভেম্বর ২০১৯ সালে। কাজ শেষ করার মেয়াদ আবেদন করে দুইবার বর্ধিত করা হয়েছে। তবুও কাজ শেষ করতে পারেনি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মুক্তা কনসট্রাকশন লিমিটেড। আবার নতুন করে আবেদন করে আগামী ২০২১ এর মার্চ পর্যন্ত সময় বর্ধিত করা হয়েছে। এদিকে বার বার কাজের সময় বর্ধিত করেও পানি সরবরাহ ব্যবস্থাপনার কাজ শেষ করতে না পারায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চারঘাট পৌরবাসী।

এ বিষয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন এর চারঘাট উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, পৌরবাসীর সাথে রীতিমত তামাশা চলছে। প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হওয়া সত্ত্বেও পৌরবাসীর কাছে এখনো বিশুদ্ধ পানি পৌঁছাইনি। ঘটা করে কাজের উদ্বোধন করা হলেও নির্ধারিত সময়ে পানি সরবারহ শুরু হয়নি। ৩য় বারের মত কাজের সময় বর্ধিত করা হয়েছে। কতৃপক্ষের উচিত কাজগুলো আরো গুরুত্ব সহকারে নির্ধারিত সময়ে সম্পূর্ণ করা।

বার বার সময় বর্ধিত করেও নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, কাজ ৭০% শেষ হয়েছে। কাজ ঠিকমতই চলছে। ৩য় বারের মত আগামী মার্চ পর্যন্ত সময় বর্ধিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চারঘাট পৌরসভার সচিব রবিউল ইসলাম বলেন, ৩য় বারের মত আগামী মার্চ মাস পর্যন্ত বিশুদ্ধ পানি সরবারহ কাজের সময় বর্ধিত করা হয়েছে। তবে মার্চেও কাজ শেষ হবেনা। আরো সময় লাগবে হয়তো।