বৃহস্পতিবার

১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিয়ামতপুরে উপজেলা নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ

Paris
Update : শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪

শাহজাহান শাজু, নিয়ামতপুর : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল এখনো ঘোষণা করা হয়নি। তবে নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলায় এই নির্বাচন ঘিরে সম্ভাব্য প্রার্থীদের তোড়জোড় শুরু হয়েছে। তাঁরা দোয়া ও সমর্থন চেয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পোস্টার লাগিয়েছেন। কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রচারণা চালাচ্ছেন। তাঁদের রঙ্গিন পোস্টার ও ফেস্টনে ছেয়ে গেছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। ভোটারদের মধ্যে শুরু হয়েছে আলাপ-আলোচনা ও গুঞ্জন। চায়ের স্টলে বসলেই শুনা যায় ভোটের রোমাঞ্চকর বাকবিতন্ডা। অন্য কোন দলের প্রার্থীর নাম শুনা না গেলেও উপজেলা আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়ে গণসংযোগ শুরু করেছেন।
চেয়ারম্যান পদে আগ্রহী প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফরিদ আহম্মেদ , উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান বিপ্লব, ভাবিচা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ভাবিচা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ওবাইদুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আবেদ হাসান মিলন, পাঁড়ইল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আখতার হোসেন, নিয়ামতপুর উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি হাসান মাহমুদ।
আগামী মে মাসে চার ধাপে সারা দেশে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তবে এখনো তফসিল ঘোষণা করা হয়নি। দ্বিতীয় ধাপে ১১ মে নিয়ামতপুর উপজেলায় নির্বাচন হওয়ার সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।স্থানীয় সরকারের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা, পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনে চেয়ারম্যান ও মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে ভোট করার বিধান আছে। তবে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনসহ স্থানীয় সরকারব্যবস্থার নির্বাচনগুলোয় দলীয়ভাবে মনোনয়ন দেবে না আওয়ামী লীগ। অর্থাৎ কাউকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে না। যাঁর যাঁর মতো স্বতন্ত্রভাবে দলের নেতারা নির্বাচন করতে পারবেন। যেকোনো প্রার্থীর পক্ষে দলের নেতারা ভোট করতে পারবেন। গত ২২ জানুয়ারি সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। সদর ইউনিয়নের টিএলবি বাজারেরর চা দোকানী বলেন, ‘আমার স্টলের ভিতর বাহিরে ও সামনের দেওয়ালে একাধিক প্রার্থী পোস্টার লাগিয়েছেন। এ ছাড়া পুরো উপজেলার সব এলাকাতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে। আমার স্টলে বসে এখন এসব নিয়েই সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে।’
উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ফরিদ আহম্মেদ গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে জয়ী হন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি । এবারও তিনি প্রার্থী হওয়ার জন্য মনস্থির করেছেন ও গণসংযোগ শুরু করেছেন। গণসংযোগকালে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি কয়েকদিন থেকে গণসংযোগ শুরু করেছি। তাতে জনগণ আমার পক্ষে রায় দিবে এমন কথাই বলছে স্থানীয় সচেতন মহল। আর ভোটারের মাঝেও ভালো সাড়া পাচ্ছি । আমি ৫ বছর জনগণের পাশে থেকে খেদমত করেছি। আশা করছি জনগণ এবারও আমাকে নির্বাচিত করবে বলে আমি মনে করি। ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেছেন ভাবিচা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ওবাইদুল হক। তিনি বলেন, এবারের উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব বলেই সবার দোয়া চেয়ে পোস্টার মেরেছি। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় জনগণের সঙ্গে দেখাও করছেন। দোয়া ও সমর্থন চাইছেন। তিনি আরও বলেন, আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না রাখার সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। এর জন্য এবারের ভোটে জনগণ যোগ্য প্রার্থীকে নির্বাচন করবে বলে তিনি মনে করেন।

 


আরোও অন্যান্য খবর
Paris