পাবনার বেড়ায় শেয়ালের কামড়ে শিশু, বৃদ্ধ, নারীসহ চার গ্রামের অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা গুরুতর। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে উপজেলার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের বাটিয়াখড়া, রাকশা, সোনাপদ্মা ও চকপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে শেয়াল দলের তাণ্ডবে গ্রামবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে গ্রামের লোকজনের প্রতিরোধের মুখে শেয়ালের দল পালিয়ে যায়। এ সময় একটি শেয়ালকে আটক করে পিটিয়ে মেরে ফেলে গ্রামবাসী।-এফএনএস

গতকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় পশু চিকিৎসক খায়রুল ইসলাম জানান, গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাটিয়াখড়া কবরস্থান থেকে একদল শিয়াল লোকালয়ে এসে প্রথমে বাটিয়াখড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অবস্থান করা বৃদ্ধ আবদুল কাদের (৬০), লাল্টু (৫৫), ওয়াজেদ (৩০) নামে তিনজনকে কামড়ে আহত করে। পরে স্থানীয়রা তাড়া দিলে শিয়ালের দল ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়িতে গিয়ে আক্রমণ করে। এ সময় শিয়ালের আক্রমণে জুয়ারা খাতুন (৪২), জেসমিন (১৪), রঞ্জনা (২৫), নিলয় (৭), রাবেয়া (৯), রেহেনা (৪৫), রাজিয়াসহ গ্রামের ১৫ জন আহত হন। পরে শিয়ালের দল পাশের রাকসা ও চকপাড়া গ্রামে হানা দিয়ে ওই দুই গ্রামে কালু মিয়া (৬০), সামছুল ইসলাম (৪০), আবু মুসাসহ (২৬) ২৫ জনকে আহত করে।

আহতদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বাটিয়াখড়া গ্রামের বাচ্চু মিয়ার স্ত্রী আক্রান্ত রেহেনা খাতুন (৪৫) জানান, রাতে বাড়ির আঙ্গিনায় অবস্থান করছিলেন। এ সময় লোডশেডিং চলছিল। অন্ধকারে শেয়ালের দল এসে তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে এলে ক্ষতস্থানে ৯টি সেলাই দিতে হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ফাতেমা তুজ জান্নাত বলেন, এ পর্যন্ত ৫ জন হাসপাতালে এসে জলাতঙ্ক রোগের ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভ্যাকসিনের স্বল্পতা থাকায় বাকি রোগীদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বেড়ার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু দাউদ হোসেন জানান, শেয়ালের আক্রমণের ঘটনার বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। আহতদের দ্রুত ভ্যাকসিন নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।