মচমইল থেকে সংবাদদাতা
রাজশাহীর বাগমারায় উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাত বার্ষিকী পালিত হয়েছে। সোমবার (১৫ আগস্ট) সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমীত এবং কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতীয় শোক দিবসে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালি শেষে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সের সালেহা ইমারত মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নরদাশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গোলাম সারওয়ার আবুলের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক এমপি।

সভাপতির বক্তব্যে ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক এমপি বলেন, কেউ অবৈধভাবে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করতে চাইলে ছাড় দেয়া হবেনা। আমরা দেখে যাচ্ছি রাজপথে নামলে পালানোর জায়গা পাবেন না। মানুষ অনেক শান্তিতে আছে। মানুষের শান্তি নষ্ট করবেন না। জাতির জনকের মৃত্যুবার্ষিকীতে আপনারা ঢাকঢোল পিটিয়ে ভূয়া জন্মদিন পালন করেন। স্বাধীন দেশে বসবাস করবেন আর স্বাধীনতার সর্বাধিনায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী পালন করবেন না সেটা হতে পারে না।
জাতির জনকের নেতৃত্বে দেশ যখন উন্নয়নের দিকে ধাবিত হচ্ছে ঠিক সেই সময় তাঁকেসহ পরিবারের সদস্যদের নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়। জাতি এই জঘন্যতম হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তারা তাদেরকে ছাড় দেবে না। এক মুজিবকে হত্যা করলেও দেশে লক্ষ মুজিবের জন্ম হয়েছে। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর পিতার আদর্শ অন্তরে ধারণ করে দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করে চলেছে। তিনি আরো বলেন, আগামী নির্বাচনে বিপুল ভোটে নৌকার বিজয় হবে। নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবেনা। দেশের উন্নয়নই বলে দেয় আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাবে। জাতির জনক থেকে বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাই দেশবাসীর সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন সর্বদায়।

এতে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মেয়র আব্দুল মালেক মন্ডল। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মতিউর রহমান টুকু, আফতাব উদ্দীন আবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দীন সুরুজ, ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ, মকবুল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, হারুনুর রশিদ, দপ্তর সম্পাদক নুরুল ইসলাম, সহ-দপ্তর আব্দুল জলিল, আইন বিষয়ক সম্পাদক মাজেদুর রহমান, চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আজাহারুল হক, লুৎফর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ আক্তার বেবী, উপজেলা মহিলা লীগের সভাপতি কহিনুর বানু, সাধারণ সম্পাদক জাহানারা বেগম, যুব মহিলা লীগের সভাপতি শাহিনুর খাতুন, সাধারণ সম্পাদক পারভীন আক্তার, যুবলীগের সভাপতি আল-মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম মীর, কৃষকলীগের সভাপতি মহসীন আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বাবু, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা উজ্জল হোসেন, নাদিরুজ্জামান মিলন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা জহুরুল ইসলাম, ইসমাইল হোসেন সান্টু সহ জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও অংগ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

অপরদিকে রাজশাহীর বাগমারায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১৫ আগস্ট) সকাল ১০ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদা খানমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের সংসদ সদস্য, সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক। জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক বলেন, বাংলাদেশকে বিশ^াস করলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মানতে হবে। দেশ এমনি এমনি স্বাধীন হয়নি। স্বাধীন বাংলাদেশের পেছনে জাতির পিতার অবদান অস্বীকার করার কিছু নেই। আওয়ামী লীগের হাত দিয়েই দেশের উন্নয়ন শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রতিটি গৃহহীণকে ঘর প্রদান করা হচ্ছে। কাউকে না খেয়ে থাকতে হয় না। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ সহ প্রতিটি ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এটাই ছিল স্বাধীনতার চেতনা।

এটাই ছিল স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। দেশবাসী যখন জাতীয় শোক দিবস পালনে ব্যস্ত ঠিক সেই সময় বিএনপি ভূয়া জন্মদিন পালনে মেতেছে। বিএনপির সময় বাগমারা ছিল সন্ত্রাস আর জঙ্গীদের আস্তানা। ভয়ে লোকজন বাড়ি থেকে বের হওয়ার সাহস পেতো না। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাগমারায় রাস্তাঘাট সহ বিভিন্ন উন্নয়নে আমূল পরিবর্তন ঘটেছে। একাডেমিক সুপারভাইজার ড. মোহাম্মদ আব্দুল মুমীত এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমাদুল হাসান, বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম, উপজেলা প্যানেল চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মেয়র আব্দুল মালেক মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ গোলাম সারওয়ার আবুল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা প্রকৌশলী খলিলুর রহমান, চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, অধ্যক্ষ হাতেম আলী সহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও সর্বস্তরের জনগণ। আলোচনা শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।