প্রেস বিজ্ঞপ্তি : শুক্রবার (২৯ জুলাই) রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) প্রধান কার্যালয়ে ব্যাংকের সকল জোনাল ব্যবস্থাপকদের ২০২১-২২ অর্থবছরের ব্যবসায়িক পারফরমেন্স মূল্যায়ন সভায় প্রধান অতিথি অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাকাব পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও সরকারের সাবেক সিনিয়র সচিব মোঃ রইছউল আলম মন্ডল। মহাব্যবস্থাপক (পরিচালন) মাকসুদা নাসরীন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মূল্যায়ন সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আব্দুল মান্নান।

 

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধান কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) ও রাজশাহী বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মোঃ জয়নাল আবেদীন; রংপুর বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মোঃ বাবর আলী; রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের বিভাগীয় নিরীক্ষা কর্মকর্তা; ব্যাংকের ১৮ টি জোনের জোনাল ব্যবস্থাপক ও জোনাল নিরীক্ষা কর্মকর্তা; প্রধান কার্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ; এসইসিইপি-এর প্রকল্প পরিচালক; রাকাব স্থানীয় মুখ্য কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক এবং ঢাকা কর্পোরেট শাখর সহকারী মহাব্যবস্থাপকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ঋণ ও অগ্রিম বিভাগ-১ এর উপ-মহাব্যস্থাপক শওকত শহীদুল ইসলাম।

 

২০২১-২২ অর্থবছরে নীট লোকসান ৪৮৪.৪৩ কোটি টাকা হতে ২১১.৭৯ কোটি টাকা কমিয়ে ২৭২.৬৪ কোটি টাকায় নামিয়ে আনায় এবং গত অর্থবছরের পরিচালন লোকসান ৩.১০ কোটি টাকা কাটিয়ে ৪৪.৮০ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করতে সক্ষম হওয়ায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোঃ রইছউল আলম মন্ডল ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আব্দুল মান্নান সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অভিনন্দন জানান। তাঁরা বলেন এই মুনাফা অর্জনে ব্যাংকের সিবিএস অনলাইন কার্যক্রম বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। উল্লেখ্য বর্তমানে রাকাব-এর সকল শাখায় অর্থাৎ ৩৮৩ টি শাখাতে অনলাইন ব্যাংকিং সেবা চালু রয়েছে।

 

মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হওয়ায় গ্রাহকগণ যেমন ঘরে বসে দৈনন্দিন ব্যাংকিং লেনদেনসহ আরটিজিএস, ইএফটি, এ-চালান, বিদ্যুৎ ও ওয়াসার বিল, মোবইল টপআপ, বিকাশ, নগদ, ট্যাপ ইত্যাদির মাধ্যমে লেনদেন/ফান্ড ট্রান্সফারসহ বিভিন্ন ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করতে পারছেন একইসাথে ব্যাংকের নন-ফান্ডেড আয়ের পরিধিও প্রসারিত হয়েছে। ব্যবস্থাপনা পরিচালক ঋণ আদায় ও কম সুদবাহী আমানত সংগ্রহের পাশাপাশি গুণগত মানসম্পন্ন ঋণ প্রদানের আহ্বান জানান। বিশেষ করে সিএসমএমই খাতে ঋণ বিতরণে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়ার পরামর্শ দেন। তিনি বিগত অর্থবছরের লাভজনকতার ধারা বজায় রেখে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে সকল ব্যবসায়িক লক্ষ্যমাত্রা অর্জনপূর্বক নীট মুনাফা অর্জনে সকলকে আরও বেশী উদ্যোগী ও কঠোর পরিশ্রম করার নিদের্শনা প্রদান করেন।