বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাত একে অপরের মধ্যে আরও সহযোগিতা বাড়াতে একমত হয়েছে। কক্সবাজারে দুই দেশের দ্বিতীয় ফরেন অফিস কনসালটেশনস (এফওসি) বৈঠকে উভয় পক্ষ এ লক্ষ্যে আলোচনা করেছে। গতকাল শুক্রবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানায়। বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) মধ্যে দ্বিতীয় ফরেন অফিস কনসালটেশনস (এফওসি) বৈঠক কক্সবাজারের ইনানীর হোটেল রয়্যাল টিউলিপে অনুষ্ঠিত হয়। এতে পররাষ্ট্র সচিব (সিনিয়র সচিব) রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। আর আরব আমিরাত প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন দেশটির অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য বিষয়ক সহকারী মন্ত্রী ড. আবদুল নাসের জামাল আল শালি। বৈঠকে দুই প্রতিনিধি দল দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক এবং বহুপাক্ষিক সহযোগিতার ধারা পর্যালোচনা করে। -এফএনএস

 

বৈঠকে আলোচনার জন্য যে বিষয়গুলো উঠে এসেছে সেগুলোর মধ্যে ছিলো উন্নত বাণিজ্য ও বাণিজ্য, অর্থনৈতিক অঞ্চলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের পক্ষ থেকে বিনিয়োগ বৃদ্ধি, মানবসম্পদ উন্নয়ন, মানুষে মানুষে যোগাযোগ, কূটনীতিক ও সরকারী কর্মকর্তাদের জন্য ভিসা মওকুফ, খাদ্য নিরাপত্তায় সহযোগিতা, জ¦ালানি ও শক্তি, বেসামরিক বিমান চলাচল, সমুদ্র অর্থনীতি, জলবায়ু পরিবর্তন ইত্যাদি। উভয় পক্ষ বিদ্যমান বন্ধুত্বের বন্ধনকে আরও সুসংহত ও নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য তাদের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে। দুই পক্ষই ২০২৪ সালে বাংলাদেশ-ইউএই কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে উচ্চ-পর্যায়ের সফরসহ ভবিষ্যতের সহযোগিতা বাড়াতে একমত হয়েছে। আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক ক্ষেত্রে উন্নয়নে মতামত বিনিময় করেছে উভয় প্রতিনিধিদল। পররাষ্ট্র সচিব সংযুক্ত আরব আমিরাতের সহকারী মন্ত্রীকে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক খাতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি, শক্তিশালী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে কৃষির অগ্রগতির বিষয়ে অবহিত করেন।

 

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সহকারী মন্ত্রী বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ভূয়সী প্রশংসা করেন। অভ্যন্তরীণ অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ সম্পন্ন করার জন্য বাংলাদেশের নেতৃত্বকে অভিনন্দন জানান। সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিনিধিদলের নেতা দীর্ঘস্থায়ী রোহিঙ্গা সংকটের একটি টেকসই ও দ্রুত সমাধানের জন্য বাংলাদেশের পক্ষে সংহতি প্রকাশ করেন। দেশগুলোর মধ্যে প্রথম ফরেন অফিস কনসালটেশনস সভা ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। উল্লেখ্য, ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র কর্মকর্তাদের ১২তম দ্বিবার্ষিক সভার সাইড লাইনে বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাত এই বৈঠক করে।