স্টাফ রিপোর্টার : প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, ভূত, প্রেতাত্মা বা অশরীরী হল মৃত ব্যক্তির আত্মা যা জীবিত ব্যক্তিদের সামনে দৃশ্য, আকার গ্রহণ বা অন্য কোনো উপায়ে আত্মপ্রকাশ করতে সক্ষম। আমাদের সমাজে ভৌতিক অভিজ্ঞতার গল্প প্রায়শই শোনা যায়। আর সেই সব ভৌতিক বিভিন্ন স্থান ও বিবরণী নিয়ে কাজ করছে সোস্যাল মিডিয়া ভিত্তিক ঘোস্ট হান্টার্স টিম।

জানা যায়, ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এই ঘোস্ট হান্টার্স টিম বিগত ১২ বছর যাবত ভৌতিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অনুসন্ধান করে। এছাড়াও ভৌতিক বিভিন্ন স্থানে গিয়ে লাইভ প্রোগ্রাম করে থাকে তারা। এই ঘোস্ট হান্টার্স টিমের প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম ফরহাদ জানান, ২০০৮ সালে ৮ সদস্য নিয়ে এই গ্রুপটি তৈরি করেন তারা। এরপর বিভিন্ন পরিত্যক্ত বাড়ি, বাঁশঝাড়, শ্মশানঘাট, বাগান, রাস্তা, পুকুরপাড় ইত্যাদি ভৌতিক বিভিন্ন স্থানে গিয়ে অনুসন্ধান করে তাদের ফেসবুক পেজ ও লাইভ বিভিন্ন প্রোগ্রাম করে। তিনি বলেন, পৃথিবীতে এমন কিছু স্থান রয়েছে যেখানে সাধারণ মানুষ যেতে চায় না। এছাড়াও সেসকল স্থান সম্পর্কে বিভিন্ন ভৌতিক ধারণা থাকে মানুষের মনে। আমরা সেসকল স্থানের উপর অনুসন্ধান করে তা জনসাধারণের উদ্দেশ্যে এই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের দ্বারা তুলে ধরার চেষ্টা করি। ঘোস্ট হান্টার্স টিম বাংলাদেশ নামের এই গ্রুপের অন্যান্য সদস্যরা হলো, জাহিদ, শাকিল, মীম, অভিরাজ, রাব্বি, রাওফুল ও সোহেল।