এফএনএস : সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শুক্রবার মারা যান আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান। ৭৩ বছর বয়সী প্রেসিডেন্টের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম ডব্লিউএএম। এক টুইট বার্তায় সংবাদমাধ্যমটি জানায়, প্রেসিডেন্ট কার্যালয় তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। আগামী ৪০ দিন রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে। জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

পাশাপাশি তিন দিন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। সংবিধান অনুযায়ী আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। নির্বাচন না আয়োজন করা পর্যন্ত তিনিই এই পদে থাকবেন বলে জানা গেছে। শেখ খলিফা বিন জায়েদ তার বাবা প্রয়াত শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের উত্তরসূরি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৪৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ২০০৪ সালে আমিরাতের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পান। ২০১৪ সালে স্ট্রোক করার পর জনসমক্ষে খুবই কম দেখা গেছে তাকে।

প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদের মৃত্যুতে শোক নেমে এসেছে দেশটিতে। পাশাপাশি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শোক জ্ঞাপন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তিনি বলেন, তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন পরীক্ষিত ও অকৃত্রিম বন্ধু হারালো।

রাষ্ট্রপতি মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর পরিবার, সংযুক্ত আরব আমিরাতের সরকার ও জনগণের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। অন্যদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্রেস উইং থেকে এ শোক বার্তা পাঠানো হয়।