চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : আসন্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে জেলা আ.লীগের সদস্য ও আ.লীগ মনোনিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোখলেসুর রহমান বলেছেন, আওয়ামীলীগ করে নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে গেলে পরিনতি ভালো হবেনা। আওয়ামীলীগের কেউ নৌকার বাইরে যাবেন না অনুরোধ সকলের প্রতি। আমি মোখলেসুর রহমান ভুল হতেই পারে। আমিও দোষ-ভুলের উর্ধ্বে নয়। এসব ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখে শেখ হাসিনার প্রতীককে বিজয়ী করতে ভোট দিবেন ও নিরলসভাবে কাজ করবেন। সদ্য সমাপ্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন পরবর্তী প্রতিনিধি সভায় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা শহরের বটতলাহাট এলাকার জোসনারা ফাউন্ডেশন শিশু পার্কে এ সভা হয়। প্রতিনিধি সভায় মোখলেসুর রহমান আরও বলেন, জেলার শিবগঞ্জে দেখেন, সব জায়গায় নৌকার জয়জয়কার। এমপি, পৌর মেয়র, উপজেলা নির্বাচনে সবকিছুতেই তারা বিজয়ী হয়েছে। অথচ যত ঝামেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা ও সদর উপজেলায়। বিভিন্ন দলীয় কোন্দলের কারনে এখানে নৌকার পরাজয় হয়েছে।

নৌকার প্রার্থী মোখলেসুর রহমান বলেন, ১৯০৩ সালের ঐতিহাসিক পৌরসভা হিসেবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার যাত্রা শুরু করে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাথে যাত্রা শুরু করা অনেক পৌরসভা এখন সিটি কর্পোরেশনে রূপান্তরিত হয়েছে। অথচ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার কোন উন্নতি হয়নি। এর অন্যতম প্রধান কারন এখানে নৌকার বিজয় হয়নি। আসন্ন নির্বাচনে নৌকাকে বিজয়ী করে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে সকল নেতাকর্মীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ।

সভায় আগামী ০২ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে জেলা আ.লীগের সদস্য ও আ.লীগ মনোনিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোখলেসুর রহমানকে বিজয়ী করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থেকে কাজ করতে আলোচনা করেন বক্তারা। এসময় নৌকা প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করতে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের বিষয়ে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তুলে ধরার বিষয়ে আলোচনা করা হয়। সভায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. শামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক মাঠ জরিপ করে, ভেবেচিন্তে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নির্বাচন করেছেন।

অথচ বিএনপি-জামায়াতের মদদে আওয়ামীলীগের একটি পক্ষকে নানাভাবে নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করতে উসকানি দিচ্ছে। এই উসকানিতে তাল দিয়ে যে বা যারা নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে দল তাদেরকে কোনভাবেই ক্ষমা করবে না। তাই এখনও সময় আছে, নৌকার তথা শেখ হাসিনার ছায়াতলে এসে কাজ করুন৷ তা না হলে এর বড় খেসারত দিতে হবে। এসময় জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদসহ জেলা আ.লীগ নেতৃবৃন্দের প্রতি বিদ্রোহী প্রার্থীকে নিয়ে বসার আহ্বান জানান এমপি ডা. শামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল। প্রতিনিধি সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদ বলেন, গত জাতীয় সংসদ আমাকে কারচুপির মাধ্যমে পরাজিত করানো হয়েছিল।

আওয়ামীলীগেরই কিছু নেতাকর্মী বিএনপি ও প্রশাসনের সাথে ষড়যন্ত্র করে ভোটে কারচুপি করেছে। বিএনপি সারাদেশে কারচুপির পরিকল্পনা করেছিল, কিন্তু চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাড়া তা কোথাও বাস্তবায়ন করতে পারেনি। এই কারনেই মূলত সারাদেশে বিএনপির ভরাডুবি হলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিজয় হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক শরিফুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব রুহুল আমিন, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, শিবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সৈয়দ মনিরুল ইসলাম, সদর উপজেলা আ.লীগের সভাপতি আজিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নজরুল ইসলাম, গোমস্তাপুর উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন জামাল মন্ডল, ভোলাহাট উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন আলী শাহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ রোকনউজ্জামান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ আ.লীগ নেতৃবৃন্দ।