সুমন আলী, নওগাঁ : সবুজ পাতার মধ্যে লকলক করছে শিমের শীষ। আর শীষে ধরে আছে বেগুনি ও হালকা সাদা রঙের ফুল। কিছু কিছু শীষে উঁকি দিচ্ছে শিম। এরই মধ্যে নওগাঁর বাজারে উঠতে শুরু করেছে আগাম জাতের নতুন শিম। এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় প্রথম দিকেই শিমের ভালো ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় খুশি কৃষক ও লাভবান হচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, এ সিমের আবাদ কৃষকদের কাছে ভাদ্রা শিম (ভাদ্র মাসের শিম) নামে পরিচিত। প্রতি বছর নিজেরা শিম চাষের জন্য বীজ সংরক্ষণ করে রাখেন। সংরক্ষন করা বীজ আগাম গ্রীষ্মকালিন শিম চাষে ব্যবহার করেন। আগাম শিম চাষ লাভজনক হওয়ায় কৃষকরা প্রতি বছরই চাষ করে থাকেন। শীতকালিন আগাম শিম ফলনে কম হলেও বাজারে ভাল দাম পাওয়া যায়। প্রতি কেজি শিম পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকা কেজি দরে। প্রথমে ফলন একটু কম হলেও, পরবর্তীতে ফলন বেশি হয়। যখন ফলন বেশি হয় তখন আর আগের মতো দামও পাওয়া যায়না।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে জেলায় আগাম জাতের সিম চাষ হয়েছে ৭শ হেক্টর জমিতে। আগাম জাতের সিমের মধ্যে কার্তিকা, কাজলা ও চালতা নামে পরিচিত। সদর উপজেলার কীর্ত্তিপুর গ্রামের শিম চাষী খায়রুল আলম বলেন, তিন দিন আগে জমি থেকে ৮ কেজি শিম তুলেছেন। পাইকারি বিক্রি করেছেন ১০০ টাকা কেজি। বাজারে শিমের পরিমাণ সরবরাহ কম হওয়ায় দামও তুলনামূলক বেশি। ভালো দামের আশায় আগাম জাতের শিমের আবাদ করা হয়। সদর উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক মোশারফ হোসেন বলেন, ৬ কাঠা জমিতে এবার আগাম শিমের আবাদ করেছেন। গাছে ভাল শিম ধরেছে এবং বাজারে দামও ভাল।

প্রায় ১০ কেজির মতো শিম তুলেছেন। প্রতি কেজি সিম ১০০ থেকে ১১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এরকম দাম থাকলে আমাদের জন্য সুবিধা হয়। কেশবপুর গ্রামের শিম চাষী সিরাজুল ইসলাম বলেন, এবার তিনি ৮কাঠা জমিতে ভাদ্র্রা শিমের আবাদ করেছেন। এ পরিমাণ জমিতে শিমের আবাদ করতে তার প্রায় বাঁশ চার হাজার টাকা, নিড়ানি খরচ এক হাজার, ঔষধ ৯শ টাকাসহ প্রায় সাড়ে ৭ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আগাম জাতের সিম পাবো বলে জৈষ্ঠ্য মাসে লাগানো হয়েছে। ভাদ্র থেকে মাঘ মাস পর্যন্ত শিম উঠানো হবে। প্রথম দিকে শিম সাড়ে তিন থেক চার হাজার টাকা মণ বিক্রি হয়। যখন শিম উঠা শুরু হয় তখন দাম একটু কম হয়। তারপরও সর্বনিম্ন ৪শ থেকে ৫শ টাকা মণ বিক্রি হয়।

প্রতি সপ্তাহে একমণ করে শিম উঠবে। সে হিসেবে মাসে চার মণ। আর দাম পাওয়া যাবে প্রায় ১২ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামছুল ওয়াদুদ বলেন, এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় জেলায় রেকর্ড পরিমান জমিতে শিম চাষ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি সদর উপজেলার বর্ষাইল, র্কীত্তিপুর ও বক্তারপুর ইউনিয়নে প্রচুর পরিমাণ সবজির আবাদ হয়ে থাকে। এটি একটি লাভজনক ফসল। আগাম শিমের আবাদ করায় কৃষকরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। এছাড়াও কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে শিম চাষীদের সব ধরনের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।