স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী নগরীতে ফারজানা তাসনিম সিমরান (২০) নামের এক বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে তারই বাসার গৃহকর্মীর মেয়ে। গত শনিবার দুপুরের দিকে নগরীর টিকাপাড়া এলাকার নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ওই ছাত্রী। আহত সিমরান শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাগ্রিবিজনেস বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি টিকাপাড়া এলাকার মৃত আলতাফ হোসেনের মেয়ে। এই ঘটনায় এলাকাবাসী ঝর্ণা খাতুন (২৩) নামের এক তরুণীকে ধরে পুলিশে দিয়েছে। ঝর্ণা টিকাপাড়া মিরেরচক এলাকার বাসিন্দা। তার মা জরিনা বেগম ভুক্তভোগীর বাড়ির গৃহকর্মী।

এ ঘটনায় গত শনিবার রাতে নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন হামলার শিকার সিমরানের মা ফরিদা ইয়াসমিন। ওই মামলায় গতকাল রোববার দুপুরের পর গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঝর্ণাকে আদালতে নিয়েছে পুলিশ। আহত সিমরানের মা ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, দুপুরের দিকে গৃহকর্মীর মেয়ে ঝর্ণা তাদের বাড়িতে আসেন। এ সময় সিমরান তার বান্ধবীর সঙ্গে দেখা করার উদ্দেশ্যে বাড়ির বাইরে বের হচ্ছিলেন। দরজার তালা খুলে বের হওয়ার সময় ঝর্ণা সিমরানের চুল ধরে জোরে টান দেন।

পরে বঁটি দিয়ে বুকের বাম পাশে সজোরে আঘাত করেন। এতে রক্তাক্ত জখম হয়ে সিমরান পড়ে যান। দরজা খুলে পালানোর সময় স্থানীয়রা হামলাকারী ঝর্ণাকে পাকড়াও করেন। নগরীর বোয়ালিয়া থানার ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার তরুণী জানিয়েছেন, চুরির উদ্দেশ্যে ওই বাড়িতে প্রবেশ করেছিলেন তিনি। কিন্তু দেখে ফেলায় গৃহকর্তার মেয়েকে বঁটির কোপ দেন। পরে পালানোর সময় তাকে পাকড়াও করে এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাকে হেফাজতে নেয়। এ সময় তার সঙ্গে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে বঁটি ও চাপাতি উদ্ধার করা হয়। দুপুরের পর গ্রেপ্তার ঝর্ণাকে আদালতে তোলা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার সাত দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে বলে জানান ওসি।