স্টাফ রিপোর্টার : পাওনা টাকার জের ধরে নগরীতে আহাদ নামের ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে নগরীর দাশপুকুর মোড় এলাকায়। আহত আহাদ মহানগরীর রাজপাড়া থানাধীন বুলনপুর গোয়ালপাড়া এলাকার স্বপন শেখের পুত্র। আহত অবস্থায় আহাদকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। আহত আহাদের মা ফৌজিয়া বেগম বলেন, আমার ছেলের কাছে প্রান্ত ১হাজার টাকা পেতো।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে লক্ষ্মিপুর কাঁচাবাজর দিয়ে যাওয়ার সময় প্রান্ত সহ রাকিবুল, সাব্বির, বিদ্যুৎ, শিমুল আমার ছেলেকে মিথ্যা কথা বলে দাশপুকুর ছাত্রলীগের কার্যালয়ে নিয়ে যায়। এরতার তাকে ঘরে আটকে রড, পাইপ, লাঠি দিয়ে মারপিট করা হয় এবং আমাকে তারা বলে ৫০হাজার টাকা নিয়ে যেতে বলে নইলে মেরে আমার ছেলের হাত পা ভেঙ্গে দিবে। আমি সেখানে গিয়ে দেখি আমার ছেলেকে মারপিট করা হয়েছে। আমি ও আমার আত্মীয়-স্বজন কোনমতে আহাদকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

আহত আহাদ বলেন, আমার সঙ্গে শিমুলের ফ্রিজের টাকা নিয়ে একটি সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিলো। আমি বিষয়টি মিমাংশার জন্য প্রান্ত, রাকিবুল, সাব্বির, বিদ্যুৎদের ডেকে ছিলাম তিনদিন আগে। পরে বিষয়টি শিমুলের সঙ্গে মিমাংশা হয়ে গেলে আমি প্রান্তদের চলে যেতে বললে প্রান্তরা ১হাজার টাকার দাবি করে। আমি তাদের বলি ঠিক আছে পরে টাকা দিবো। এর আমি বৃহস্পতিবার রাতে লক্ষ্মিপুর পুলিশ বক্সে কম্পিউটারে কাজ সেরে একজনের সঙ্গে দেখা করার উদ্দেশ্যে লক্ষ্মিপুর কাঁচাবাজার থেকে যাচ্ছিলাম। এসময় প্রান্তরা জোর করে আমাকে দাশপুকুর নিয়ে গিয়ে মারধর করে এবং আমাকে দিয়ে জোর করে বলায় যে আমার কাছে তারা ১০হাজার টাকা পাবে।

পরে আমার মায়ের কাছে তারা ৫০হাজার টাকা দাবি করে এবং বলে যে টাকা না দিলে তারা আমাকে মারধর করবে। এরপর তারা আমার মা আসার আগেই জিআইপাইপ ও পুলিশের কাছে যে লাঠি থাকে তা কোথায় থেকে যানি যোগার করে আমাকে মারধর করে। এতে আমার দুটি আঙ্গুল ভেঙ্গে যায় এবং শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাত লাগে। এ ঘটনায় রাজপাড়া থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।