এফএনএস : মন্থর, একটু বাড়তি বাউন্স থাকা উইকেটে সারা দিন দারুণ বোলিং করে গেলেন অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা। চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞতায় জবাব দিলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। গোলাপি বলের টেস্টের প্রথম দিনে অ্যাডিলেইডে দেখা গেল ব্যাট-বলের জমজমাট লড়াই। অ্যাডিলেইড ওভালে বৃহস্পতিবার প্রথম দিনের খেলা শেষে ভারতের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৩৩ রান। ঋদ্ধিমান সাহা ৯ ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন ১৫ রানে ব্যাট করছেন। ব্যাটিং করা ছিল বেশ কঠিন। বল একটু দেরিতে ব্যাটে আসছিল। বাড়তি বাউন্স ভাবাচ্ছিল ব্যাটসম্যানদের। সঙ্গে পাঁচ বোলারে গড়া অস্ট্রেলিয়ার বোলিং আক্রমণ পুরোটা সময় বল করে গেছে নিখুঁত লাইন-লেংথে। খুব বেশি বাজে বল মেলেনি সারা দিনে।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি ভারতের। ম্যাচের দ্বিতীয় বলেই পৃথ্বি শকে বোল্ড করে দেন মিচেল স্টার্ক। থিতু হয়ে যাওয়া আরেক ওপেনার মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে বোল্ড করেন প্যাট কামিন্স। শুরুতে সংগ্রাম করছিলেন বিরাট কোহলি। তাকে দ্রুত ফেরানোর একটা সুযোগও আসে। ন্যাথান লায়নের বাড়তি লাফানো বল গ্লান্স করতে গিয়ে কিপারকে ক্যাচ দেন তিনি। ব্যাটসম্যানের গ্লাভসে বলের মৃদু স্পর্শ বুঝতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ার কেউ। বেঁচে যান সেসময় ১৬ রানে থাকা ভারত অধিনায়ক। দুই বছর আগে অস্ট্রেলিয়ায় ভারতের সিরিজ জয়ে দারুণ অবদান রাখা চেতেশ্বর পুজারা দাঁড়িয়ে যান এবারও। ধীরে ধীরে তার সঙ্গে জমে ওঠে কোহলির জুটি।

শুরুর ধাক্কা সামাল দিয়ে এগোতে থাকে ভারত। চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় কোনো ক্ষতি ছাড়াই দ্বিতীয় সেশন প্রায় কাটিয়ে দিচ্ছিলেন পুজারা ও কোহলি। শেষ দিকে রিভিউ নিয়ে তাদের ৬৮ রানের জুটি ভাঙে অস্ট্রেলিয়া। লায়নের বলে লেগ স্লিপে মার্নাস লাবুশেনকে ক্যাচ দিয়ে থামেন পুজারা। তার ১৬০ বলে খেলা ৪৩ রানের ইনিংসে চার কেবল দুটি। পরের উইকেটে অজিঙ্কা রাহানের সঙ্গে আরেকটা ভালো জুটি গড়েন কোহলি। ৫ চারে ১২৩ বলে ফিফটিতে পৌঁছান অধিনায়ক। টেস্টে এটি তার দ্বিতীয় মন্থরতম পঞ্চাশ। সামনে এগিয়ে আসছিল লাইটের আলোয় দ্বিতীয় নতুন বল সামলানোর চ্যালেঞ্জ। থিতু হয়ে গিয়েছিলেন দুই ব্যাটসম্যানই। জুটির রান এগিয়ে যাচ্ছিল তিন অঙ্কের দিকে।

এমন সময়ে রাহানের ভুল কলে রান আউট হয়ে যান কোহলি। লায়নের বলে একটু এগিয়ে ড্রাইভ করে আরও কয়েক পা এগিয়ে গিয়েছিলেন রাহানে। তার কল পেয়েই দ্রুত গতিতে এগিয়ে যান কোহলি। সহ-অধিনায়ক যখন তাকে ফিরিয়ে দেন তখন আর ফেরার সময় ছিল না। রান আউটের সহজ সুযোগ কাজে লাগায় অস্ট্রেলিয়া। ৮ চারে ১৮০ বলে ৭৬ রান করেন কোহলি। তার বিদায়ে ভাঙে ৮৮ রানের জুটি। খানিক পর ফিরে যান রাহানেও। নতুন বলে প্রথম ওভারেই তাকে এলবিডব্লিউ করে দেন স্টার্ক। পরে হনুমা বিহারীকে এলবিডব্লিউ করে দেন জশ হেইজেলউড। দিনের বাকি সময়টা অশ্বিনকে নিয়ে কাটিয়ে দেন কিপার-ব্যাটসম্যান ঋদ্ধিমান। ৪৯ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন স্টার্ক। একটি করে পেয়েছেন কামিন্স, হেইজেলউড ও লায়ন।