শনিবার

২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে নারীর সংবাদ সম্মেলন

Paris
Update : বুধবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার : আমাকে অপহরণ বা গুম করা হয়নি! আমি স্বেচ্ছায় স্বামীর সংসার ছেড়ে রাজশাহীতে চলে এসেছি। গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহী মহানগরীর একটি রেস্তোরায় ছেলে উল্লাস সরকারকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বর্তমান স্বামীর নামে নাটোর বড়াইগ্রাম থানায় মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহার করার জোর দাবি জানান শ্রী চম্পা সরকার (৩২)। শ্রী চম্পা সরকার নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম থানা এলাকার মৃত সুরেশ চন্দ্র সরকার (টগর) এর মেয়ে। সম্মেলনে চম্পা সরকার বলেন, দীর্ঘ ১৫ বছর পূর্বে হিন্দু ধর্মের বিধান মতে শ্রী মদন সরকার এর সহিত আমার বিবাহ হয়। বিবাহের পরবর্তীকালে আমাদের মধ্যে সাংসারিক বনিবনা না হওয়ায় আমার জীবন অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়।

আমি আমার ভবিষৎ চিন্তা করে দুই ছেলের মধ্যে আমার ছোট ছেলে উল্লাস সরকারকে সাথে নিয়ে স্বামীর সংসার ত্যাগ করে রাজশাহীতে চলে আসি এবং গত ২৬ নভেম্বর রাজশাহী জেলা নোটারি পাবলিক কর্যালয়ে স্ব-শরীরে হাজীর হয়ে আমার পূর্বের স্বামী শ্রী মদন সরকারকে (ডির্ভোস) পরিত্যাগের ঘোষানা করি। এবং গত ২৯ নভেম্বর শ্রী অমিত চৌধুরীর সহিত রাজশাহী জেলা নোটারি পাবলিক কার্যালয়ে আমরা দুজনে হাজীর হয়ে বিবাহের এফিডেভিট সম্পাদন করি। এর পর থেকে, আমার সাবেক স্বামী শ্রী মদন সরকার ও তার ছোট ভাই মিলন সরকার প্রভাবশালী হওয়ায় আমার বড় ভাই বিল্পব সরকারকে ভুল বুঝিয়ে আমাকে ও আমার বর্তমান স্বামী শ্রী অমিত চৌধুরীর ক্ষতি করার লক্ষে বড়াইগ্রাম থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে।

এছাড়াও আমার সাবেক স্বামী ও তার ছোট ভাই তাদের ভাড়া করা গুন্ডাবাহিনী দিয়ে আমাদের মেরে ফেলার হুমকিসহ প্রতিনিয়ত ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে শুধু স্বামীর অত্যাচারই সহ্য করিনি বরং আমার সাবেক স্বামীর ছোট ভাই মিলন সরকার কয়েক দফা আমাকে মারধর করে। গত ১৭ নভেম্বরেও আমাকে আমার দেবর চড় থাপ্পর লাথি মেরে বাড়ি থেকে বের করে দিলে প্রথমে আমি আমার ভাই বিল্পব সরকারের বাসায় গিয়ে উঠি সেখানেও সাবেক স্বামী ও দেবর নানা পন্থাবলম্বনে আমাকে অত্যাচার শুরু করলে ছেলেকে সাথে নিয়ে আমি রাজশাহীতে চলে আসি। আমি এখন আমার বর্তমান স্বামী শ্রী অমিত সরকারকে নিয়ে সুখে আছি ভালো আছি। আমাকে কেউ অপহরন বা গুম করে নিয়ে আসেনি। আমি এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমার স্বামীর নামে বড়াইগ্রাম থানায় মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহার করার জোর দাবি জানাচ্ছি।

চম্পা সরকারের বর্তমান স্বামী শ্রী অমিত চৌধুরী এবিষয়ে বলেন, চম্পা তার পূর্ব পরিচিত। চম্পা সরকার তার দুলা ভাইয়ের ছোট বোন। তার পূর্বের স্বামী ও দেবর চম্পাকে নানারকম নির্যাতন ও অত্যাচার করতো। যার কারণে চম্পা তার পূর্বের স্বামীর বাড়ি ছেড়ে রাজশাহীতে এসে আমাকে গত ২৯ নভেম্বর আমাকে বিয়ে করে। এবিষয়ে চম্পা সরকারের সাবেক স্বামী শ্রী মদন সরকার তার মুঠো ফোনে বলেন, ১৯৯৮ সালে তার সাথে চম্পার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তারা ভালো ভাবেই সুখের সংসার করছিলেন। আমার ব্যস্ততার কারণে বিগত দুই বছর যাবৎ চম্পা তার এক নিকটআত্মীয় অমিতের সাথে পরকিয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। আর এতে সহোযোগিতা করে চম্পার এক খালাতো ভাই। পরকীয়া প্রেম শুরু করার পর থেকেই চম্পা আমার সাথে খারাপ আচরণ শুরু করে।

আমি সংসার, আত্ম সম্মান আর দুই সন্তানের দিকে তাকিয়ে তার খারাপ আচরণ মেনে নিয়েছিলাম। আমি সারাদিন মাঠে জমিজমা দেখাশুনা করি, আর সেই সুযোগে আমার স্ত্রী চম্পা তার পরকীয়া প্রেমিকের সাথে যোগাযোগ আরো বেশি বাড়িয়ে দেয়। চম্পা তার বড় ভাই বিপ্লব সরকারের বাড়ি যাবার নাম করে সমস্ত কাপড় চোঁপর, প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, স্বর্ণালঙ্কার ও ছোট ছেলে উল্লাস সরকারকে নিয়ে কাউকে সত্য কথা না বলে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। এবং তার কিছু দিন পরে আমাকে তালাকের কাগজ পাঠায়। তালাকের মাত্র দুই দিন পরে চম্পা তার পরকীয়া প্রেমিক অমিত চৌধুরীকে বিয়ে করেন। বিষয়টি যেমন অসামাজিক ঠিক তেমনিভাবে নিন্দাজনকও বটে। তিনি আরো বলেন, চম্পার বর্তমান স্বামী অমিতের বিরুদ্ধে আমি কোন মামলা করিনি। তিনি আরো বলেন, আমার সাবেক স্ত্রী শ্রী চম্পা সরকারের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছে তারই আপন ভাই বিল্পব সরকার।


আরোও অন্যান্য খবর
Paris