স্টাফ রিপোর্টার : গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট রাজশাহী মহানগর শাখা তিন দফা দাবিতে বিক্ষোভ করে। আন্দোলনের অংশ হিসেবে নগরীর লক্ষিপুরস্থ প্রায় দুই শতাধিক ঔষধের দোকান গতকাল বেলা ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বন্ধ রাখা হয়। ফার্মেসী বন্ধ রেখে নগরীতে অবস্থিত বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতির কার্যালয়ের সামনে আন্দোলন করে শহরের ফার্মেসী ব্যবসায়িরা। এসময় আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ মিছিল রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল হয়ে লক্ষীপুরে গিয়ে শেষ হয়। আন্দোলনে বক্তব্য দেন, সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হারুণ-আর-রশীদ।

তিনি বলেন, এই কার্যালয়ে ১০ মাস ধরে তালা দেওয়া আছে। ফার্মাসিস্ট ট্রেনিং বন্ধ রয়েছে। নির্দিষ্ট কমিটি না থাকায় বর্তমানে আহ্বায়ক বা এ্যাডহক কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন চট্রগ্রাম, টাঙ্গাইল ও নওগাঁর ব্যক্তি। যার কারেণ আমাদের সমস্যার সমাধানের জন্য কোন লোক পাওয়া যাচ্ছে না। রাজশাহীতে যিনি দায়িত্বরত আছে তিনি ১০ মাস অফিসে তালা দিয়ে ঘরে বসে আছেন। তিনি সেন্ট্রাল সদস্য হবার কারণেই সকল সমস্যা হচ্ছে বলে দাবি আন্দোলনকারীদের।

আন্দোলনে রাজশাহীতে অনতিবিলম্বে নির্বাচন দেবার দাবি জানান আন্দোলনকারীরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রঞ্জু, সাবেক সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম, মারুফ আহমেদ, শেখ আনারুল হক খিচ্চু, শহিদুল্লাহ খানসহ আরো অনেকেই। গতকাল এই বিক্ষোভের কারণে বিভিন্ন জটিল ব্যধি নিয়ে রাজশাহী হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগী ও তাদের স্বজনরা ছাড়াও স্থানীয় ঔষধ ক্রেতারা পড়েন ভোগান্তির মধ্যে। অনেকই জরুরী ঔষধ কিনতে এসে পড়েন ভোগান্তির মধ্যে।